ডালহৌসি অঞ্চলে ব্যস্ত রাস্তা আরএন মুখার্জি রোড ধরে প্রতিদিনই বহু মানুষের আনাগোনা৷ অথচ পথ চলতি কাউকে যে ব্যক্তির নামে রাস্তা তাঁকে চেনেন কী না জানতে চাইলে হতাশ হতে হয়৷ অনেকে কিছুই বলতেই পারেন না৷ দেখা যায় এদের মধ্যে দু’-একজনের তাঁকে একজন নামকরা ব্যবসায়ী বলে জানলেও, বিস্তারিত ভাবে তাঁর সম্পর্কে কিছু তাদেরও জানা নেই৷ যদিও ওই লোকগুলিই বিল গেটস বা জামশেদজি টাটার শুধু নাম নয় অনেক কিছুই বলে দিতে পারেন৷ এমনটাই বোধহয় আত্মবিস্মৃত বাঙালির পক্ষেই সম্ভব৷ বাঙালি সাধারণত ব্যবসা করে না বলেই পরিচিত কিন্তু যাঁরা স্যর রাজেন্দ্রনাথ মুখার্জির কথা জানেন তাঁরা সে কথা মানতে চাইবেন না৷ কারণ শিল্প উদ্যোগের ক্ষেত্রে স্যর রাজেন হলেন এক প্রাতঃস্মরণীয় ব্যক্তি৷

তরুণ রাণা তাঁর বই ‘‘রাজেন্দ্রনাথ মুখার্জী: এক বিস্মৃত মহাজীবন’’-এর মাধ্যমে নিজেদের অতীত ভুলতে থাকা বাঙালিকে এই প্রবাদপ্রতিম সফল ব্যবসায়ীর কথা মনে করানোর চেষ্টা করেছেন৷ আলচ্য বইটিতে লেখক তুলে ধরেছেন, অখ্যাত গ্রাম থেকে উঠে আসা সেই বঙ্গ সন্তানটি ব্রিটিশ আমলে কেমন ভাবে তাঁর বাণিজ্যর বিস্তার করেছিলেন৷ প্রথম জীবনে নেটিভ হওয়ার সুবাদে কাজ করতে গিয়ে উন্নাসিক ইউরোপিয়দের কাছ থেকে অসহযোগিতা পেয়েছিলেন ঠিকই৷ আবার পরবর্তীকালে এই বঙ্গ সন্তানটির কাজ দেখে ব্রিটিশ সরকারের কর্তারা খুশি হয়ে একেবারে তাঁকে প্রশাসনিক কাজে লাগাতে চেয়েছিলেন, যদিও স্যর রাজেন সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন৷

স্যর রাজেন কারও গোলামি করতে রাজি হননি, বরং ঝুঁকি নিয়ে স্বাধীন ভাবে ব্যবসায় ঝুঁকে ছিলেন৷ প্রথমে কলকাতা কর্পোরেশনের জলপ্রকল্প দিয়ে রাজেন্দ্রনাথের ব্যবসার হাতে খড়ি হলেও, পরে তাঁর কাজের সুনাম ছড়িয়ে পড়লে দেশের অন্যত্র জলপ্রকল্পের কাজ করার বরাত পেতে থাকেন তিনি৷ আবার ভিক্টোরিয়ার মেমোরিয়াল, বেলুড় মঠ, হাওড়া ব্রীজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন অট্টালিকা নির্মাণে নিযুক্ত হয় তাঁর সংস্থা৷ ফলে একদিক থেকে তিনি কলকাতার রূপকারও বটে৷ তিনি অনুভব করেছিলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা আরও দৃঢ় করতে রেল পরিষেবা ছড়িয়ে দিতে হবে৷ তাই তাঁর উদ্যোগে মার্টিন রেলের মাধ্যমে গ্রামগুলিকে বড় শহরের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছিল৷

মূলত শিল্পপতি হলেও এদেশের শিক্ষা (বিশেষত কারিগরি শিক্ষা) এবং খেলাধূলার ক্ষেত্রে উন্নতির জন্য এই মানুষটির বিশেষ অবদান রয়েছে সেইসব কথাও উঠে এসেছে আলোচ্য বইটিতে ৷ কিন্তু এই বইটিতে ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউট গড়ার ক্ষেত্রে তাঁর ভূমিকা কিংবা মোহনবাগান ক্লাবের সঙ্গে স্যর রাজেনের নিবিঢ় যোগাযোগের দিকটায় আলোকপাত করা হয়নি৷ যেমন আবার টাটাদের টিসকোর মতো রাজেন মুখার্জিদের উদ্যোগে ইস্পাত কারখানা ইস্কো গড়ে উঠেছিল সে বিষয়টি এই বইতে অধরা রয়ে গিয়েছে৷ এই রকম কয়েকটি বিষয় বাদ গেলেও স্যার রাজেনকে বাঙালিদের কাছে নতুন করে চেনাতে তরুণ রাণার এমন ইতিবাচক উদ্যোগকে অস্বীকার করা যায় না৷

বই: রাজেন্দ্রনাথ মুখার্জী: এক বিস্মৃত মহাজীবন
লেখক: তরুণ রাণা
প্রকাশক: সূত্রধর
মূল্য: ৩০০টাকা